আন্তর্জাতিক

কলা খাওয়ার ভিডিও প্রকাশ করায় সিরিয়ার শরণার্থীদের উপর ক্ষেপেছে তুরস্ক

কলা খাওয়ার ভিডিও প্রকাশ করায় সিরিয়ার শরণার্থীদের উপর ক্ষেপেছে তুরস্ক। এরই মধ্যে সিরিয়ার সাত শরণার্থীকে আটক করা হয়েছে এ ঘটনায়। বলা হচ্ছে, তুরস্কের মুদ্রার মান পড়ে যাওয়ায় জনগণ যে তীব্র অর্থনৈতিক চাপে পড়েছেন তাকে বিদ্রূপ করার উদ্দেশ্যে এই ভিডিও ছড়ানো হয়েছে।এ অপরাধে তাদেরকে বহিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছে আঙ্কারা। তুরস্কের অভিবাসন অধিদপ্তর বলেছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ওই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পর তুর্কি জনগণের মধ্যে ‘প্রচণ্ড ক্ষোভ’ তৈরি হয়েছে। আটক সাত শরণার্থীকে সিরিয়ায় ফেরত পাঠানো হবে। জানা গেছে, তুরস্কে কলার চাষ হয় না বরং দেশটির জনগণকে বিদেশ থেকে আমদানি করা এই ফল চড়া দামে কিনে খেতে হয়। ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যায়, একজন সিরীয় শরণার্থী তরুণী কলা খাচ্ছেন এবং তার প্রতি রাগ ঝাড়ছেন একজন তুর্কি নাগরিক। তিনি সিরীয় তরুণীকে যা বলছেন তার অর্থ হচ্ছে- তারা শরণার্থী হয়েও তুরস্কের নাগরিকদের চেয়ে কেন ভালো খাচ্ছেন এবং ভালো থাকছেন! 

ওই তুর্কি নাগরিক বলছেন, আমি কলা খেতে পারছি না অথচ তুমি কয়েক কেজি কলা একসঙ্গে কিনে খাচ্ছো? এই ভিডিও ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ার পর সিরীয় শরণার্থীদের আত্মসম্মানে আঘাত লাগে এবং তাদের কেউ কেউ কলা খাওয়ার দৃশ্য ভিডিও করে ও ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করতে থাকে। এতেই ক্ষেপেছে তুরস্ক।উল্লেখ্য, লিরার মুদ্রামানের পতন ও তীব্র মূল্যস্ফীতির কারণে তুরস্কের জনগণের মধ্যে সাম্প্রতিক সময়ে প্রচণ্ড শরণার্থী-বিরোধী জনমত গড়ে উঠেছে। তুরস্কে বর্তমানে প্রায় ৫০ লাখ শরণার্থী বসবাস করছে যাদের বেশিরভাগই সিরিয়ার যুদ্ধ থেকে পালিয়ে এসেছে। সূত্র : পার্সটুডে।

সংশ্লিষ্ঠ খবরগুলো

Back to top button